বিএনপির ১৫ নেতাকর্মী গ্রেফতার, দাবি আমানের

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির ১৫ জন নেতাকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে বলে দাবি করেছেন ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির আহ্বায়ক আমান উল্লাহ আমান।

রোববার (৩১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে দলের পক্ষ থেকে আয়োজিত জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান।

দুপুরে নেতাকর্মীরা একটি বাসায় মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করলে সেখানে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে এবং সেখান থেকে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে নিয়ে যায় বলে দাবি করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে দুপুরের ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আমান বলেন, ‘বিএনপির ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব, তেজগাঁও মহানগরীর নেতাকর্মীরাসহ আমরা শাহীনবাগে বাদ জোহর একটি মিলাদে অংশ নিই। মিলাদ শেষে গুম হওয়া বিএনপির ছাত্রনেতা সাজেদুল ইসলাম সুমনের অসুস্থ মাকে আমরা দেখতে যাই।’

তিনি বলেন, ‘সে সময় সুমনের বাড়ির চারিদিকে শতাধিক ইউনিফর্ম পরিহিত এবং অর্ধ-শতাধিক সাদা পোশাকের পুলিশ ঘিরে ফেলে। দরজা খুলে ঢুকে তারা নেতাকর্মীদের বেধড়ক মারধর করে এবং গ্রেফতার করে। আমরা প্রতিবাদ করে বলি, আমরা তো মিলাদে এসেছি, আমাদের মারধর করছেন কেন? অসুস্থ মাকে দেখতে এসেছি, তারা কোনো কথায় শুনেননি। ওসি অপূর্বের নেতৃত্বে এই ঘটনা ঘটেছে। প্রায় ১৫ জন নেতাকর্মীকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়।’

‘এই গ্রেফতার কেন’—প্রশ্ন রেখে আমান বলেন, ‘আমাদের কী গণতান্ত্রিক অধিকার নেই। আমরা কী মিলাদেও অংশ নিতে পারব না। এটা কি নিষিদ্ধ?’ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণে কোথাও বিএনপি নেতাকর্মীরা কর্মসূচি পালন করতে পারছেন না বলে অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপি নেতা সুমনের বাসায় অভিযান চালিয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের বিষয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানাতে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। এতে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও ঢাকা মহানগর উত্তরের সদস্য সচিব আমিনুল হক উপস্থিত ছিলেন।