ডিজেল কেনায় সীমা বেঁধে দিল চীন

ডিজেল কেনায় সীমা বেঁধে দিচ্ছে চীনের অনেক পেট্রল স্টেশন। দাম বাড়ায় ও সরবরাহ কমে যাওয়ায় এই রেশনিং ব্যবস্থা চালু করতে হয়েছে পেট্রল স্টেশনগুলোকে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

চীনের বিভিন্ন জায়গায় পেট্রল স্টেশনে ট্রাকগুলোকে শুধু ১০০ লিটার ডিজেল নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে, যা তাদের ধারণক্ষমতার মাত্র ১০ শতাংশ। দেশের কিছু অংশে অবস্থা আরও কঠোর করা হয়েছে। চালকদের শুধু ২৫ লিটার পর্যন্ত কেনার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

চীনে জ্বালানি সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। চীনা ওয়েবসাইট ওয়েইবোর বিভিন্ন পোস্টে অনেকেই লিখেছেন, অনেক ট্রাকচালককে জ্বালানির জন্য পুরো দিন অপেক্ষা করতে হয়।

কয়লা ও প্রাকৃতিক গ্যাসের ঘাটতির কারণে বন্ধ হয়ে গেছে চীনের অনেক কারখানা। কয়লাসংকট বিদ্যুতের সংকট তৈরি করেছে। বিদ্যুৎবিহীন হয়ে পড়েছে অনেক ঘরবাড়ি। বিশ্লেষকেরা মনে করছেন, চীনের এই সংকটের প্রভাব শিগগিরই সারা বিশ্বে প্রভাব ফেলবে।

ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের পরিচালক ম্যাটি বেকিঙ্ক বলেছেন, বর্তমান ডিজেলের ঘাটতি দীর্ঘ দূরত্বের পরিবহন ব্যবসাকে প্রভাবিত করছে বলে মনে হচ্ছে। যার মধ্যে চীনের বাইরের বাজারের পণ্যও অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। কত দিন এ সংকট থাকবে এবং কতটা তীব্র হবে, এখন দেখার বিষয়। এটি বৈশ্বিক সরবরাহব্যবস্থাকে তীব্র চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলতে পারে।

বিশ্বব্যাপী সরবরাহ শৃঙ্খলে যে সংকট তৈরি হয়েছে, তা মূলত কোভিড-১৯ মহামারির কারণে। করোনার সময় কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ ছিল। জ্বালানি উৎপাদন কমাতে হয়েছিল। তবে দেশে দেশে লকডাউন উঠে যাওয়ায়, অর্থনীতি পুনরায় খুলতে শুরু করায় চাহিদা বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে হঠাৎ করেই সরবরাহে ঘাটতি তৈরি হয়েছে।