‘জমি নিয়ে বিরোধে ৩ লাশ’

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বালুমহাল ও জমির বিরোধে চাচা-ভাতিজাকে ছুরিকাঘাত ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ।  এ ঘটনায় হওয়া মামলায় পুলিশ পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করলে বাঁশখালী থানার ভেতরেই একজন বিষ পান করেন।  বর্তমানে তিনি পুলিশ পাহারায় চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

নিহত আব্দুল খালেক (৩৫) বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলার বাঁশখালী উপজেলা শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক। তিনি একটি ওষুধ কম্পানির মেডিক্যাল রিপ্রেজেনটেটিভ এবং স্থানীয় একটি বালুমহাল ব্যবসায়ও জড়িত। তাঁর চাচা নিহত সোলতান মাহমুদ টিপুও (৩৮) ছাত্ররাজনীতি করতেন।

নিহতদের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বাঁশখালী ইকোপার্কসংলগ্ন শীলকূপ আশিঘরপাড়ার একটি বালুমহাল ও পৈতৃক সম্পত্তি নিয়ে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে ওই চাচা-ভাতিজার দীর্ঘদিনের বিরোধ। গত এক মাসে কয়েক দফা মারামারি হয়েছে। সর্বশেষ গত বুধবার দুপুর ১২টায় প্রতিপক্ষ কাছিম আলীর ছেলেদের সঙ্গে হাতাহাতি হয়। এর দুই ঘণ্টা পর বাড়ির পাশে মনছুরিয়া বাজারে খালেক ও তাঁর চাচা গেলে কাছিমের লোকজন তাঁদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও হাতুড়িপেটা করে। খবর পেয়ে টিপুর বাবা মো. কামাল উদ্দিন লোকজন নিয়ে এগিয়ে গেলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে কামাল এবং প্রতিপক্ষের মনজুর ও বাহাদুর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে খালেক মারা যান। পরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যান টিপু।