এফডিআরের সুদ কমার প্রভাবে ইউনিলিভারের নিট মুনাফা হ্রাস

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের বহুজাতিক কোম্পানি ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ার লিমিটেডের কর-পরবর্তী নিট মুনাফা চলতি ২০২১ হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে (জানুয়ারি-সেপ্টেম্বর) আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ১৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ কমেছে। মূলত এফডিআরের সুদহার কমে যাওয়ার কারণে কোম্পানিটির আর্থিক আয় কমে গেছে। এর প্রভাবে নিট মুনাফায় নেতিবাচক প্রবৃদ্ধি হয়েছে বলে জানিয়েছেন কোম্পানিটির কর্মকর্তারা।

গতকাল বিকালে অনুষ্ঠিত সভায় চলতি হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিকের (জুলাই-সেপ্টেম্বর) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদন করে কোম্পানিটির পর্ষদ। প্রতিবেদন অনুসারে চলতি হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছে ৩৮ কোটি ৬৭ লাখ টাকা। যেখানে আগের বছরের একই সময়ে নিট মুনাফা ছিল ৪৫ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। তিন প্রান্তিকে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩২ টাকা ১০ পয়সা। যেখানে আগের বছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩৮ টাকা ৫ পয়সা।

এদিকে চলতি হিসাব বছরের তৃতীয় প্রান্তিকে ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের কর-পরবর্তী নিট মুনাফা হয়েছে ১৬ কোটি ২৯ লাখ টাকা। যেখানে আগের বছরের একই সময়ে নিট মুনাফা ছিল ১৪ কোটি ৬ লাখ টাকা। তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ১৩ টাকা ৫২ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিল ১১ টাকা ৬৭ পয়সা। এ বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর শেষে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১১১ টাকা ১৯ পয়সায়।

তিন প্রান্তিকে কোম্পানিটির নিট মুনাফা কমে যাওয়ার কারণ হিসেবে কোম্পানিটির কর্মকর্তারা বলছেন, এফডিআরের সুদের হার কমে যাওয়ার কারণে এ সময়ে আগের বছরের তুলনায় কোম্পানির ১১ কোটি ৩৩ লাখ টাকা আর্থিক আয় কমেছে। মূলত এ কারণেই কোম্পানির নিট মুনাফা কমে গেছে।

সর্বশেষ ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত ২০২০ হিসাব বছরের জন্য শেয়ারহোল্ডারদের ৪৪০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করেছে ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের পরিচালনা পর্ষদ। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির ইপিএস হয়েছে ৪৩ টাকা ৯৪ পয়সা, আগের হিসাব বছরে যা ছিল ৮১ টাকা ৮৩ পয়সা। এ হিসাবে কোম্পানিটির বার্ষিক ইপিএস কমেছে ৩৭ টাকা ৮৯ পয়সা বা ৪৬ দশমিক ৩ শতাংশ। ২০২০ সালের ৩১ ডিসেম্বর শেষে কোম্পানিটির এনএভিপিএস দাঁড়িয়েছে ১২৩ টাকা ৮ পয়সা, আগের হিসাব বছর শেষে যা ছিল ১৩২ টাকা ১৪ পয়সা।

১৯৭৬ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন (জিএসকে) বাংলাদেশ লিমিটেডের নাম ও ট্রেডিং কোড সম্প্রতি পরিবর্তন করা হয়েছে। ইউনিলিভার কর্তৃক গত বছর অধিগ্রহণের পর কোম্পানিটির নতুন নাম হয়েছে ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ার লিমিটেড। আর ডিএসইতে কোম্পানিটির ট্রেডিং কোড ‘ইউনিলিভারসিএল’। নাম ও ট্রেডিং কোডের সঙ্গে সঙ্গে কোম্পানিটির খাতেও পরিবর্তন এসেছে। ডিএসইতে ওষুধ ও রসায়ন খাতের পরিবর্তে এখন খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের কোম্পানি হিসেবে এর শেয়ার লেনদেন হচ্ছে।

২০ কোটি টাকা অনুমোদিত মূলধনের বিপরীতে বর্তমানে ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের পরিশোধিত মূলধন ১২ কোটি ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা। রিজার্ভে রয়েছে ১৩৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৮৭ দশমিক ৮৮ শতাংশই রয়েছে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের হাতে। এছাড়া প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ৭ দশমিক ৮১, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের কাছে দশমিক ৩০ ও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে বাকি ৪ দশমিক শূন্য ১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল ইউনিলিভার কনজিউমার কেয়ারের শেয়ার সর্বশেষ ২ হাজার ৮৫৯ টাকায় হাতবদল হয়েছে। গত এক বছরে এ শেয়ারের দর ২ হাজার ৪৬ টাকা ৩০ পয়সা থেকে ৪ হাজার ৫১ টাকা ৬০ পয়সার মধ্যে ওঠানামা করেছে।